কাশ্মীরে নারীদের যৌ’ন হয়রানি করছে ভারতীয় সেনারা!

কাশ্মীরে নারীদের যৌ’ন হয়রানি করছে ভারতীয় সেনারা!

কাশ্মীরিদের ওপর আন্তর্জাতিকভাবে নি’ষিদ্ধ পেলেট বা ছররা গু’লি ছুড়ছে ভারতীয় সেনারা। শিশু, যুবক, কিংবা বৃদ্ধ- ঘর থেকে বের হলেই চোখ-মুখ লক্ষ্য করে বৃষ্টির মতো ছোড়া হচ্ছে গু’লি।আগে থেকেই ছররা গু’লির ব্যবহার থাকলেও জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ও স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পর থেকে বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে নতুন করে আহত হয়েছেন অনেকেই। অন্ধ হয়েছেন বেশ কয়েকজন।

 

হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন কেউ কেউ। গু’রুতর আহত হলেও অনেকেরই চিকিৎসার সুযোগ দেয়া হচ্ছে না। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, কোনো রকম উসকানি ছাড়াই তাদের দিকে ‘পেলেট গা’ন’ তাক করা হচ্ছে।গত দুই সপ্তাহে ঠিক কতজন ছররা গু’লিতে আহত হয়েছেন, তা নিয়ে গণমাধ্যমের কাছে মুখ খুলছে না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে সরকারের পক্ষ থেকে নি’ষেধাজ্ঞা রয়েছে বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।নয়াদিল্লিভিত্তিক কয়েকটি মানবাধিকার সংস্থার অভিযোগ, বাড়ি ত’ল্লাশির নামে বহু নারী ও অল্প বয়সী কিশোরীকে যৌ’ন হয়রানি এবং শতশত কিশোরকে আটক করা হয়েছে।

 

স্বায়ত্তশাসন বাতিলের একদিন পর (৬ আগস্ট) ছররা গু’লিতে গু’রুতর আহত হন ১৬ বছর বয়সী কিশোর আসরার আহমেদ। বাড়ির বাইরে বের হলে সেনারা তাকে লক্ষ্য করে কয়েক রা’উন্ড গু’লি ছোড়ে।এতে তার মাথা, চোখ, কাঁধ ও মুখে মা’রাত্মক ক্ষতের সৃষ্টি হয়। ১৫ দিন ধরে শ্রীনগরের শের-ই-কাশ্মীর ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সাইন্সেস (এসকেআইএমএস) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসা নিচ্ছেন তিনি।হাসপাতালে বিছানায় শুয়ে ছররা গু’লি খাওয়ার অভিজ্ঞতা জানিয়ে আহমেদ বলেন, ‘একটা বল আনতে বাড়ির প্রধান ফটকের বাইরে বের হই আমি।

 

ঠিক তখনই কিছু দূরে দাঁড়ানো সেনারা প্রথমে আমার দিকে টি’য়ার গ্যাস ছুড়ে মারে। পরপরই আমার চোখে ও মুখে ছররা গু’লি ফায়ার করে।’ ছররা গু’লিতে আহতদের চিকিৎসার জন্য শ্রীনগরের সবচেয়ে বড় হাসপাতাল শ্রী মহারাজা হরি সিং হাসপাতালে (এসএমএইচএস) চক্ষু বিভাগ খোলা হয়েছে।প্রায় প্রতিদিনই নতুন নতুন রোগী ভর্তি হচ্ছে এখানে। এখন অনেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। শ্রীনগর পুরনো শহরের বাসিন্দা সামির হোসেন তাদেরই একজন। একটি ওষুধের দোকান চালান হোসেন। তিনি জানান, গত শনিবার ছররা গু’লি লাগে তার।

 

ওই সময় নিজের ওষুধের দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। সেদিনের অভিজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার বাম চোখে এসে লাগে গু’লি। দোকান থেকে ফেরার পথে পুলিশ গু’লি চালায়। আমি ঠিক জানি না, তারা কেন আমার দিকে তাক করল।’সামির হোসেনের বিছানার পাশেই য’ন্ত্রণায় ছ’টফ’ট করছিলেন ৭৫ বছর বয়সী মোহাম্মদ সাদিক। তার চোখেও ছররা গু’লি লেগেছে। সাদিক বলছিলেন, ‘মাগরিবের নামাজ পড়ে ঘরে ফিরছিলাম আমি। ওই সময় মসজিদের কাছেই কিছু মানুষ বি’ক্ষোভ করছিল। তাদের লক্ষ্য করে গু’লি ছোড়ে পুলিশ। আমি বি’ক্ষোভে অংশ নিইনি। কিন্তু আমাকেও গু’লি করা হয়েছে।’

 

হাসপাতালের চক্ষু বিভাগে ছররা গু’লির রোগীর ভিড় থাকলেও এ পর্যন্ত ঠিক কতজন চিকিৎসা নিয়েছেন, সে ব্যাপারে একেবারে নীরব রয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ইতিপূর্বে হাসপাতালের স্টাফরাও ছররা গু’লির রোগীর ব্যাপারে সহজেই তথ্য দিতেন।কিন্তু এখন একেবারেই চুপ। রোগীদের দর্শনার্থীদের ওপর কড়া নজর রাখছে পুলিশ। রাতে দায়িত্ব পালন করা চক্ষু বিভাগের এক ডাক্তারের সঙ্গে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ওয়ার্ডে বর্তমানে ঠিক কতজন রোগী ভর্তি আছেন তা তিনি জানেন না।

 

সিনিয়র ডাক্তারদের থেকে কোনো তথ্য পাওয়া যায় না। এ নিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার এখতিয়ার নেই আমাদের।’ বি’ক্ষোভ রুখতে ২০১০ সাল থেকে পে’লেট গা’ন (এক ধরনের অ’স্ত্র) ব্যবহার করছে বাহিনী।ভারতে শুধু কাশ্মীরেই এই পে’লেট গা’ন ব্যবহার করা হচ্ছে। ব’ন্দুকের গু’লির মতো মা’রণাস্ত্র নয় এ ছররা। একেকটি শেলের মধ্যে ছোট ছোট পাঁচ শতাধিক লোহার বল থাকে। ব’ন্দুক থেকে এই শে’ল ছোড়া হলে বাইরের খোলস ফেটে বলগুলো চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

 

কাশ্মীর সরকারের এক তথ্যানুসারে, ২০১৭ সালে আট শতাধিক কাশ্মীরি চোখে আহত হন। তবে পিলেট ভি’কটিম ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের মতে, ২০১৭ সালে ১২০০-এর বেশি নারী, পুরুষ ও শিশুর চোখে ছররার গু’লি লাগে। এর মধ্যে শতাধিক কাশ্মীরির এক বা উভয় চোখ অন্ধ হয়ে যায়। ২০১৬ সালকে তো ‘গণ-অন্ধত্ব বছর’ বলা হয়ে থাকে। ওই বছরের ৮ জুলাই বি’চ্ছিন্নতাবা’দী নেতা বুরহান ওয়ানির হ’ত্যার পর উত্তপ্ত কাশ্মীরে ১১০০ জনের চোখে ছররা ঢোকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 viewer.com.bd
Design BY NewsTheme