রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৬:৪৩ অপরাহ্ন

স্বাধীনতা অর্জন ও স্বাধীনতা রক্ষা দুটোই বড় চ্যালেন্জ: আজহারী

ইউসুব শরীফ / ৪২
আপডেট: বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০, ৫:৫২ পূর্বাহ্ন

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্টেটাস দিয়েছেন জনপ্রিয় ইসলামিক বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী। পাঠকদের উদ্দেশ্যে পোষ্টটি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

 

স্বাধীনতা অর্জন ও স্বাধীনতা রক্ষা— দুটোই বড় চ্যালেন্জ। প্রথম চ্যালেন্জ ওভারকাম করতে পারলেও, দ্বিতীয় চ্যালেন্জ ওভারকাম করতে গিয়ে এ জাতি হোঁচট খাচ্ছে বারবার। “সাম্য, মানবিক মযার্দা, সামাজিক সুবিচার, নাগরিক অধিকার ও গণতন্ত্র”— মোটাদাগে এগুলোই ছিল মহান মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা। কিন্তু স্বাধীন বাংলাদেশে আমরা এসবের কতটুকু নিশ্চিত করতে পেরেছি? সেটাই আজ বড় প্রশ্ন। সেটাই বড় চ্যালেন্জ।

 

স্বাধীনতা অর্জন করেও, স্বার্থপরতা ও চিন্তার দাসত্ব থেকে আমরা মুক্তি পাইনি আজও। দিনে দিনে বৈষম্য বেড়েছে। হীনমন্যতা, অসহনশীলতা, অনিয়ম আর দূর্নীতি যেন আজও আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী। তাই, স্বাধীনতা অর্জিত হলেও, লড়াই থামেনি আমাদের এখনো। সম্প্রীতির বাংলাদেশ, মানবিক বাংলাদেশ আর সমৃদ্ধির বাংলাদেশ গড়তে— লড়ে যেতে হবে এ জাতিকে শেষ পর্যন্ত। সেই সাথে বেরিয়ে আসতে হবে সকল উস্কানিমূলক ও আক্রমণাত্মক আভ্যন্তরীণ কোন্দল আর হিংসাত্মক মনোভাব থেকে।

 

জাতীয় ঐক্য ছাড়া স্বপ্নের বাংলাদেশ তৈরী করা কি আদৌ সম্ভব? অথচ আমরা বিভাজনে ব্যস্ত। ভারসাম্যপূর্ণ সমাজ, রাষ্ট্র ও সভ্যতা বিনির্মাণ করতে গেলে— জাতি হিসেবে আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। একে অন্যের প্রতি সাম্প্রদায়িক তকমা লাগানো এবং কাদা ছোড়াছুড়ি থামাতে হবে। এধরণের সহিংস মনোভাবে সঙ্কট আরো প্রকট হচ্ছে। দরকার সমন্বিত প্রয়াস। হৃদয়ে বাংলাদেশকে ধারণ করে, রাজনৈতিক বৈচিত্রের মাঝেও দেশ গড়ার এক ও অভিন্ন লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যেতে হবে সবাইকে। মাইলস টু গো..

স্বাধীন ভূখণ্ড মহান আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে এক বিরাট নেয়ামত। এটা আমরা অনেকেই টের পাইনা। এ ব্যাপারটি উপলব্ধি করতে হলে খুব বেশীদূর যেতে হবে না। বাংলাদেশে অবস্থিত প্রায় এক মিলয়ন রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দিকে তাকালেই সেটা বুঝা যায়। আহা! নিজ জন্মভূমি থেকে বিতাড়িত হয়ে ভিনদেশের আশ্রয় শিবিরে দিনাতিপাত করাটা যে কতোটা নির্মম ও বেদনাদায়ক তা কেবল ভুক্তভোগীরাই জানে। পাশাপাশি, স্বাধীন সার্বভৌম একটি ভূখণ্ডের জন্য ফিলিস্তিন ও কাশ্মীরের ভাইবোনদের দীর্ঘ সংগ্রাম আর করুণ আর্তনাদও আমাদের সে কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। তাই, আজকের এ মহান বিজয় দিবসে বিনয়াবনত চিত্তে শুকরিয়া জানাই আল্লাহর দরবারে এবং বিজয়ের কারিগর সকল শহীদের প্রতি জানাই হৃদয় নিংড়ানো দোয়া, ভালোবাসা ও বিনম্র শ্রদ্ধা।

 

“শহীদের রক্তে অর্জিত এ বিজয় যেন লুন্ঠিত না হয় কভু, প্রিয় জন্মভূমি প্রিয় বাংলাদেশকে তুমি শান্তিময় করো প্রভু।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর