পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে হোটেলে গিয়ে গৃহবধূ খু’ন

0
928
views

চিকিৎসা করাতে গিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁ এলাকার একটি আবাসিক হোটেলে আসমা ইস’লাম (৩৬) নামে এক গৃহবধূর র’হস্যজনক মৃ’ত্যু হয়েছে। তিনি যশোরের আরবপুর পাওয়ার হাউজপাড়া এলাকার শাহানুর ইস’লামের স্ত্রী’। থাকতেন যশোর সদরের নওদাগাঁ এলাকার জনৈক মঞ্জু নামে এক শিক্ষকের বাড়িতে। আসমা ইস’লামের মেয়ে মিশুর অ’ভিযোগ, নওদাগাঁ এলাকার ড্রাইভার আবুল কাশেম তার মাকে শ্বা’সরোধ করে হ’ত্যা করেছেন।

 

তিনি জানান, বুধবার (১৫ জানুয়ারি) তার মা ও খালা মনোয়ারা বেগম চিকিৎসা করাতে ভারতে যান। তারা ২৪ পরগণা জে’লার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত শহর বনগাঁ এলাকার বাটা মোড়ে হোটেল শ্যামাপ্রসাদে ছিলেন। ওই হোটেলের একটি কক্ষে তার মা ও নওদাগাঁ এলাকার ড্রাইভার আবুল কাশেম এবং অ’পরকক্ষে তার খালা মনোয়ারা বেগম ছিলেন।১৬ তারিখ সকালে রুম পরিষ্কার করতে গিয়ে হোটেল কর্মচারী আসমাকে মৃ’ত অবস্থায় পান। তখন আবুল কাশেম সেখানে ছিলেন না। পরে তার ম’রদেহ উ’দ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতাল ম’র্গে পাঠানো হয়।

 

তিনি আরও জানান, ১৭ জানুয়ারি যশোর কোতোয়ালি থা’না পু’লিশকে বিষয়টি অবহিত করে তার মায়ের ম’রদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করতে অনুরোধ করেন।প্রসঙ্গত, আসমা ইস’লামের বাড়ি আরবপুর পাওয়ার হাউজ এলাকায় হলেও তারা যশোর সদরের নওদাগাঁ এলাকায় ভাড়া থাকতেন। তার মেয়ে মিশু পু’লিশকে জানিয়েছেন- একই এলাকার আবুল কাশেম তার মাকে উ’ত্যক্ত করতেন।তবে, স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, আসমা’র সঙ্গে আবুল কাশেমের পর’কী’য়ার স’ম্পর্ক ছিল। তারা ভারতে যাওয়ার আগেই কাশেম সেই হোটেলে উঠেছিলেন।

 

বনগাঁ থা*না পু’লিশ সূত্রে জানা গেছে, আসমা ইস’লাম ও আবুল কাশেম স্বামী-স্ত্রী’ পরিচয়ে হোটেল শ্যামাপ্রসাদে আগেও কয়েকবার এসেছেন। দিন কয়েক কাটিয়ে চলেও গিয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার সকালে তারা তাদরে একসঙ্গে হোটেলের রুম থেকে নিচে নামতে দেখেছেন কর্মচারীরা।যশোর কোতোয়ালি থা’নার ওসি (ত’দন্ত) শেখ তাসমীম আলম বলেন, শুক্রবার তার স্বজনরা এসেছিলেন। আমি তাদের বলেছি, ম’রদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে তারা বিজিবি ও আমাদের ইমিগ্রেশন পু’লিশের সঙ্গে যেন যোগাযোগ করেন।

 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আবুল কাশেমই তাকে হ’ত্যা করেছে কি না বিষয়টি আম’রা নিশ্চিত নই। তার বি’রুদ্ধে আনীত অ’ভিযোগের তথ্য প্রমাণ যদি আমাদের কাছে আসে, তবে আম’রা অবশ্যই আ’ইনগত ব্যবস্থা নেবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here