চীনা পুরুষদের শয্যাসঙ্গী হতে বাধ্য করা হচ্ছে উইঘুর মুসলিম নারীদের

920
পড়েছে

চাইনিজ পুরুষদের সাথে একই বিছানায় যেতে বাধ্য করা হচ্ছে চীনের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় জিনজিয়াং প্রদেশের মুসলিম উইঘুর নারীদের।উইঘুর পুরুষদের পুন:শিক্ষা কেন্দ্রের নামে সরকারি ক্যাম্পে বন্দি করার পর তাদের পরিবারের দেখভাল করার জন্য সেখানে সরকারি কর্মকর্তাদের পাঠিয়ে মহিলাদেরকে তাদের শয্যাসঙ্গী করতে বাধ্য করা হয়। খবর ব্রিটিশ গণমাধ্যম ইনডিপেন্ডেন্ট ও ডেইলি মেইল এর।

 

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সূত্র দিয়ে গণমাধ্যম ইনডিপেন্ডেট জানায়, চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সদস্যরা নিয়মিত পরিবারগুলোর দেখভালের জন্য সেখানে যায় এবং মহিলাদেরকে তাদের সাথে বিছানায় যেতে বাধ্য করে।গত বছর থেকেই উইঘুর পরিবারগুলোর বিস্তারিত তথ্য যোগার করা শুরু করেছে চীন। এরপরই তারা পরিবারের পুরুষদের রিএডুকেশন ক্যাম্পের মাধ্যমে চীনা সংস্কৃতির সাথে পরিচয় করানোর নামে ব ন্দি করে এবং পরিবারের মহিলাদের দেখভাল করার জন্য সেখানে হান জাতিগোষ্ঠীর চীনা কর্মকর্তাদের প্রেরণ করে।

 

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির বরাত দিয়ে ইনডিপেন্ডেন্ট জানায়, যে কর্মকর্তারা পরিবারগুলোর দেখাশোনা করার জন্য তারা সেখানে যায় এবং মহিলাদের সাথে বিছানায় গমন করে তাদেরকে রিলেটিভ নামে অবিহিত করা হয়।এরকম ৭০ থেকে ৮০টি পরিবারের দেখাশোনার দায়িত্বে নিয়োজিত কমিউনিস্ট পার্টির এক কর্মকর্তা জানায়, তারা সেখানে সারাদিনই অবস্থান করে। সাধারণত একটি বিছানায় তারা দুইজন থাকে কিন্তু আবহাওয়া ঠান্ডা থাকলে সেখানে তিনজনও থাকা হয়।

 

ঐ কর্মকর্তা বলেন, ঐ সময় তাদেরকে চীনা আদর্শ ও জীবনযাপন সম্পর্কে ধারণা দেয়া হয়। সেইসাথে একে অপরের প্রতি কিভাবে সম্পর্ক উন্নয়ন করা যায় তার শিক্ষা দেয়া হয়। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ১হিউম্যান রাইটস ওয়াচ’ এর প্রতিবেদন অনুসারে উইঘুর মহিলাদের এসব চীনা কর্মকর্তাদের প্রত্যাখ্যান করার কোন সুযোগ নেই, কারণ তাদের প্রত্যাখ্যান করলেই তাদের পরিবারের বাবা, ভাই, সন্তান ও স্বামীদের উপর নি র্যাতন নেমে আসে এবং তাদের বন্দি করা হয়।

মতামত দিতে চান?

Please enter your comment!
Please enter your name here