দাফনের ৫ মাস পর জীবিত অবস্থায় ধরা পড়লেন তিনি

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার বি’ষখালি নদীতে জে’লেদের জা’লে হাত-পা বাঁধা, মাথাবি’হীন লা’শটি নিজের দেবরের দাবি করে দা’ফন করেছেন রেহেনা বেগম নামের এক নারী। এর আগে গত ৩০ জুলাই পাথরঘাটা থানার ফারুক আকন নি’খোঁজ মর্মে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তিনি।

দাফনের ৫ মাস পর থানায় জিডির ভিত্তিতে বিভিন্ন এলাকায় অভি’যান চালিয়ে রাজধানীর ভাটারা এলাকা থেকে গত সোমবার পুলিশ আ’টক করে ফারুক আকনকে।আজ বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহবিুদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আটক ফারুক আকন উপজেলার কাকচিড়া ইউনিয়নের জালিয়াঘাটা গ্রামের মৃ’ত হাতেম আলী আকনের ছেলে।

 

এদিকে, ওই লা’শ দাফনের ১৫ দিন পর বরগুনার সদর উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের কাটাখালী গ্রামের আবদুর রহিম খানের ছেলে মো. সোহেল খানের লা’শ দাবি করেন তার মা লাইলি বেগম। লা’শের সঙ্গে থাকা সাইকেলের চাবি ও জামা দেখে ছেলের লা’শ শনা’ক্ত করলে পরবর্তীতে ডিএনএ টে’স্টে প্রমাণ মেলে। পরে আদালতের মাধ্যমে লা’শ উত্তোলন করে সোহেলের নিজ বাড়িতে নিয়ে পুনরায় দা’ফন করেন তার পরিবার।

 

পাথরঘাটা থানা সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে ফারুক আকনের সঙ্গে প্রতিবেশী বাচ্চু হাওলাদারের জমিজমা নিয়ে বিরো’ধ থাকাকালীন ওই জমির কাগজপত্র নিয়ে উকিলের পরামর্শ নিতে পাথরঘাটা আসেন। পাথরঘাটা আসার পর থেকে ফারুকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পারায় তার ভাইয়ের স্ত্রী রেহানা বেগম পাথরঘাটা থানায় জিডি করেন। থানায় অভিযোগের দশ দিন পর বিষখালি নদীতে ওই লা’শ পাওয়ার পর তার স্বজনরা লা’শটি ফারুক আকনের বলে শনা’ক্ত করেন। পরবর্তীতে একই লা’শ বরগুনার সদর উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের কাটাখালী গ্রামের আবদুর রহিম খানের ছেলে মো. সোহেল খানের নিশ্চিত হওয়ায় পুলিশের সন্দে’হ বেড়ে যায়।

 

এরপর পাঁচ মাস পর মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে রাজধানীর ভাটারা থানা পুলিশের সহযোগিতায় ফারুক আকনকে জী’বিত অবস্থায় আ’টক করা হয়।পাথরঘাটা থানা পুলিশ পরিদর্শক সাইদ আহমেদ জানান, সোহেল হ’ত্যা’র সঙ্গে ফারুক আকনের কোনো সম্পৃ’ক্ততা আছে কি না, তা খ’তিয়ে দেখা হচ্ছে। আটক ফারুক আকনকে আজ বিকেলে আ’দালতে তোলা হলে পাথরঘাটা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুব্রত মল্লিক তাকে কা’রাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মতামত দিতে চান?

Please enter your comment!
Please enter your name here