সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন

ভণ্ড হিজাবীরা কিন্তু একেকজন সানি লিওন!

Reporter Name / ২২৪ Time View
Update : সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৭:৫৯ অপরাহ্ন

আমাদের ছে’লেবেলায় আমাদের মা-খালা-চাচীরা মা’থায় কাপড় দিতেন শাড়ির আঁচল টেনে। আর অল্প বয়েসিরা যদি মা’থায় কাপড় দিত তাহলে ওড়নাই ছিল একমাত্র। আর মা’থায় কাপড় দেবার সুবিধা হিসেবে এরা বখাটেদের নজরে পড়ত কম, সাধারণ মানুষ খানিকটা সমীহ করে চলতো এই।

 

এখন রাস্তা ঘাটে উৎসবে অনুষ্ঠানে অনেক বেশী চোখে পরে হিজাব পরা মে’য়েদের। কারণ একেবারেই ধ’র্মীয়। ইস’লাম যে পর্দা প্রথার কথা বলে সেটি হচ্ছে এমন বস্ত্র খণ্ড দ্বারা নিজেকে আবৃত করো যেন তোমা’র শরীর অন্যকে লো’ভাতুর না করে। তারই অংশ হিসেবে মা’থার চুল ঢাকার কথাও বলা আছে। এটা মোটা দাগের কথা।

 

আর পবিত্র কোরআন শরীফের সুরা নুর এ বলা আছে- রাসূল (ছাঃ)-এর প্রতি আল্লাহর অহী, ‘মুমিনা নারীগণকে বল, তারা যেন তাদের আপন দৃষ্টি সংযত রাখে, আপন লজ্জাস্থান রক্ষা করে চলে, প্রকাশ না করে তাদের বেশ-ভূষা এবং অলংকার ততটুকু ব্যতীত, যতটুকু সাধারণতঃ প্রকাশমান এবং আপন চাদর গলা ও বুকের উপর জড়িয়ে দেয় এবং প্রকাশ না করে তাদের সাজ-সজ্জা তাদের স্বামী, পিতা, শ্বশুর, নিজের পুত্র, স্বামীর পুত্র, সহোদর ভাই, ভাইয়ের পুত্র, ভাগিনা অথবা তাদের নারীগণ, তাদের অধীনস্থ গো’লাম অথবা কামপ্রবৃত্তিহীন গো’লাম অথবা সেই সকল শি’শু যারা নারীর গো’পন বিষয় স’ম্পর্কে জানে না এদের নিকট ব্যতীত। আর নারীরা যেন তাদের পা এমন জো’রে না ফেলে, যা দ্বারা তাদের গো’পন সাজ-সজ্জা প্রকাশ পায়’ (নূর ৩১)।

 

যুগ বদলেছে। সেই বদল নিজের চোখে দেখে এলাম বর্ষ বরণের অনুষ্ঠানে। আমা’র মত যারা নিতান্তই সাদাসিধে বেশবাসে গেছে তারা এমনিতেই চোখে পড়ে না বিশেষ। কিন্তু বড় পিঠ খোলা ব্লাউজ পরে যারা ঘোরাফেরা করছেন তাদেরও খুব বেশি একটা কেউ দেখছেনা।

 

তবে দেখছে কাদের? দেখছে রংবাহারী হিজাবিদের। চোখ ছোট করে, বড় করে, ট্যারা করে, বাঁকা চোখে ,সরু চোখে, ঘাড় বাঁকিয়ে যাদের নারী পুরুষ নির্বিশেষে দেখছে তারা হিজাবি!!!গলার যে ছোট গয়নাটা হিজাবের কারণে আর পরতে পারছেন না, সেটা এখন মা’থার হিজাবের শোভা বাড়াচ্ছে। হিজাবের কারণে গয়নাগাটি যেটুকু কম পরতে হচ্ছে সেটুকুর শখ মেটাচ্ছেন চট’কদার সেজে। ঠোঁটের রং, চোখের রঙ, গালের রঙ এরা এতো চড়া করে লাগায় যে মনে হয় বিলবোর্ডের বিজ্ঞাপনের ছোট কাপড় পরা মে’য়েটিকেও হার মানিয়ে দেবে বিজ্ঞাপনে।

 

এ সমস্ত উগ্র সাজসজ্জার মেসেজ হচ্ছে, ‘লুক এট মি’। শাড়ি পরবার কায়দা দেখে মনে হচ্ছে শরীরের সমস্ত বাঁক ফুটিয়ে তোলার যাদুকরী উপায় ওরা বের করে নিয়েছে।এতো গেল শাড়ির কথা আসি সালোয়ার কুর্তায়। জামা’র ওড়নাকে চোদ্দ প্যাচ দিয়ে হিজাবের কায়দায় পরবার চেষ্টা দেখে মনে হয় মা’থার চুল ঢাকলেও ফিগারটাতো ভাল দেখানো চাই। আবার যারা জিন্স-টপস পরছেন তাদের আটো-সাঁটো জিন্স অনেক বেশি ফ্যাশনেবল।

 

সাধারণ জিন্সের চাইতে আলাদা। বেশির ভাগেরই জিন্সের গায়ে নানা রকমের নকশা কা’টা, বিডস বসানো,চকমকি পাথর খচিত। তার উপরে চাপানো টপস মনে হবে চামড়ার সাথে সেলাই করা অথচ মা’থায় হিজাব এমন করে আঁটা যেন গলা পর্যন্ত পেঁচিয়ে রাখা যায়। কেউ কেউ তো বাথিং ক্যাপের মত কিছু একটা দিয়ে পর্দা করছেন। অথচ গলার চেইনে যে লকেট সেটা ক্লিভেজের কাছে ঝুলছে!!!

 

এহেন পোশাকে সেজে মা’থায় হিজাব দিয়ে যারা ঘুরেন ধ’র্মের ধ্বজাধারি হয়ে, সেক্স অ্যাপিল সম্বলিত পোশাকে মা’থায় হিজাব এঁটে ঘুরবার সময় কী’ এরা ভাবে যে একবার তাকালেই এদের বুক পেট কোম’রের মাপ একটা শি’শুও বলে দিতে পারবে! নাকি ইস’লাম আসলে কেবল চুল ঢাকাকেই পর্দা মনে করে? এদের চলাফেরা দেখলে মনে হয় কেবল চুল ঢেকে সমস্ত খুলে দিয়ে চললেও অ’সুবিধা নেই। ঘিলুটা দয়া করে খাটান। মা’থার চুলে না, সেক্স অ্যাপিল থাকে শরীরে।

 

ভেবেছিলাম ব্যাক্তি স্বাধীনতার যুগে যার যেমন ইচ্ছে চলতে পারে, আমা’র বলার কী’! কিন্তু ঝামেলা হলো এরা যে ঝাণ্ডাটা ধরে আছে, যে মুখোশ এঁটে আছে সেটা ধ’র্মের। ধ’র্ম না বলে যদি নিজের ফ্যাশান বলতো, আ’পত্তি থাকার কথা ছিল না। কিন্তু এরাতো বলছে ধ’র্মের কথা, তাই বলতেই হলো।

 

কথায় কথায় সুবাহানাল্লাহ, মাশাআল্লা বলা এই নব্য মু’সলমানের দল আমা’র ধ’র্মবোধকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে প্রতিনিয়ত। এই বক ধার্মিকদের বি’রুদ্ধে না বলা মানে ধ’র্মের নামে অধ’র্মকারীকে প্রশ্রয় দেয়া। অনেক নাজুক মু’সলিম আছেন যাদের বলতে শুনি, আহা মে’য়েটা কেমন মা’থায় কাপড় দিয়ে ঘুরছে, আবার কেউ কেউ বলেন, আমি তো দিচ্ছি না, ও যে দিচ্ছে সেই তো অনেক। এই গোত্রের মানুষরাও একই অ’প’রাধে অ’প’রাধী।

 

নাস্তিকেরা গালি দিলে এতো লাফ দেন, আর নিজেরা যে অধ’র্ম করেন তখন আপনাদের লাগে না? নাকি ইস’লাম আপনাদের মনের মাধুরী মিশিয়ে পালনের পথ খোলা রেখেছে? ওর থেকে দেখে শিখেছি, তার থেকে শুনে করেছি’র অজুহাত দেবার দিন আর নেই। গুগুল ডার্লিং নেট দুনিয়ায় দুহাত বাড়িয়ে আছে।

 

বোতাম টিপে সার্চ দিলেই বেহেস্তি জেওর থেকে সহী ইস’লাম সবই পেয়ে যাবেন। সবটা আম’রা কেউই পালন করতে পারি না, কিন্তু যেটুকু করি সেটুকু কেন ভণ্ডামি মিশিয়ে করবো? আগে আয়নায় দাঁড়িয়ে নিজেকে প্রশ্ন করে দেখু’ন যে ইস’লামের পর্দা প্রথা আপনি মানতে প্রস্তুত কিনা! আঁটোসাটো পোশাক পরে কোন রকমে চুল ঢেকে আর দুচারটা আরবী শব্দের তুমুল ব্যবহার করে যদি ধ’র্ম হয়, তবে সহি ধার্মিকের লজ্জা পাওয়া উচিত।

 

একটা গল্প বলি – এক হুজুর ওয়াজ শেষে গেছেন টয়লেটে, সেরে উঠে আসবার সময় তার টুপিটা গেল পড়ে। হুজুর তখন ‘আমা’র সুন্নত চলে গেছে, সুন্নত চলে গেছে’ বলে তুমুল চি’ৎকার করতে করতে তার লুঙ্গি খুলে মা’থায় দিয়ে দৌড়ুচ্ছে আর লোকজন হুজুরকে সাহায্য করতে ব্যস্ত। সেই ভিড়ের ভেতর এক বুড়ি তার হাত দুইটা দিয়ে চোখ ঢেকে রেখে বলছে হুজুর ফরজ বাঁ’চান।

 

এই যে আমা’র মতো বেপর্দা মে’য়ে এত লেকচার দিচ্ছে সেটা পড়ে যাদের আমা’র উপর রাগ হচ্ছে, গাল দিতে ইচ্ছে করছে, নিজের মা’থার চুল ছিঁড়তে ইচ্ছে করছে, আমাকে আনফ্রেন্ড করতে চাইছেন, অনুগ্রহ করে করে ফেলুন, খালি আমায় ক্ষমা করবেন না, কারণ আমি মোটেও ক্ষমাপ্রার্থী নই।

 

ভণ্ড আর বি’কৃত ইস’লাম ধারীদের জন্যে আবার একটু এডিট করতে হলো সুরা নুর থেকে সংযু’ক্তি টেনে। এবার গলা ফাটিয়ে কুরআন শরীফের সুরার বিরুদ্ধাচরণ করছেন সেকথা স্বীকার করুন। আর এবার আমায় তসলিমা নাসরিন বলুন, আর কদর্থে লুসিফারই বলুন, আপনাদের মত ভণ্ড হিজাবীরা কিন্তু একেকজন সানি লিওন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

কি খুঁজছেন?

তারিখ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর