আবরারের চেয়েও জঘ’ন্য এই হ’ত্যা!

28461
পড়েছে

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে তুহিন (৫) নামে এক শিশুকে হ’ত্যা করে গাছের সঙ্গে ম’রদেহ ঝুলিয়ে রেখেছে ঘা’তকরা। শিশু তুহিনের পেটে একটি নয়, বরং দুটি ছুরি ঢুকিয়ে হ’ত্যা করে ঘা’তকেরা। ব’র্বরতার এখানেই শেষ নয়। তার দুই কান ও যৌ’না’ঙ্গও কে’টে নেওয়া হয়েছে। পরে পাঁচ বছর বয়সী ওই শিশুর নি’থর দেহ ঝুলিয়ে রাখা হয় কদম গাছের ডালে। গতকাল রোববার দিবাগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের কাজাউড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নি’হত তুহিন ওই গ্রামের আব্দুল বাছিরের ছেলে।

 

নি’হতের স্বজনরা জানান, গতকাল রোববার রাতের খাবার খেয়ে পরিবারের সবাই ঘুমিয়ে পড়েন। রাত ৩টার দিকে তুহিনের চাচাতো বোন ঘরের দরজা খোলা দেখে ডাকাডাকি শুরু করেন। এ সময় পরিবারের সদস্যরা ঘুম থেকে উঠে দেখেন তুহিন ঘরে নেই। অনেক খোঁজাখুঁজি করে বাড়ি থেকে একটু দূরে মসজিদের পাশে একটি গাছের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তার ম’রদেহ পায়। এ সময় তার পেটে দুটি ছু’রি বিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। খবর পেয়ে সকালে দিরাই থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে শিশু তুহিনের ম’রদেহ উদ্ধার করে।

 

তখন প্রতিবেশীদেরও ডেকে তোলা হয়। শুরু হয় খোঁজাখুঁজি। একপর্যায়ে বাড়ির পাশে রাস্তায় গিয়ে র’ক্ত দেখতে পান তারা। কিছুটা সামনে গিয়ে রাস্তার পাশে কদম গাছে তুহিনের ঝু’লন্ত লা’শ দেখতে পান তারা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লা’শ উ’দ্ধার করে বলেও জানান ইমরান আহমেদ।আবদুল বাছিরের ভাই আবদুল মছব্বির বলেন, ‘তুহিন এবার স্কুলে ভর্তি হয়েছিল। তার বাবার জমিজমা নিয়ে গ্রামের কিছু মানুষের সঙ্গে বিরোধ আছে। কিন্তু কে বা কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, আমরা বুঝতে পারছি না। যে-ই করে থাকুক, আমরা তাদের শা’স্তি চাই।’

 

দিরাই থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেএম নজরুল ইসলাম জানান, ম’রদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল ম’র্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

মতামত দিতে চান?

Please enter your comment!
Please enter your name here