ভারতের ক্রিকেটে শোকের ছায়া, মারা গেলেন জনপ্রিয় ওপেনার

761
পড়েছে

সোমবার সকালে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক ওপেনার মাধব আপতে। সোমবার সকালে মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর।ভারতীয় ক্রিকেটের শুরুর দিককার অন্যতম তারকা ছিলেন আপতে। ১৯৫৩ সালের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে তিনিই ভারতের প্রথম ওপেনার হিসেবে এক টেস্ট সিরিজে ৪০০’র বেশি রান করার নজির গড়েছিলেন। সেবার ৫ ম্যাচে ১ সেঞ্চুরি ও ৩ ফিফটিতে ৫১.১১ গড়ে ব্যাটিং করে মোট ৪৬০ রান করেছিলেন আপতে।

 

তবে এরপর আর ভারতের জার্সি গায়ে খেলতে পারেননি তিনি। তৎকালীন বোর্ডের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির শিকার হয়ে মাত্র ৭ ম্যাচ খেলেই শেষ হয়ে গেছে আপতের সম্ভাবনাময় ক্যারিয়ার। ১৯৫২ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে অভিষেক হওয়া আপতে, ক্যারিয়ারের ৭ ম্যাচে ৪৯.২৭ গড়ে করেছিলেন ৫৪২ রান।আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার দীর্ঘায়িত না হলেও, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ১৭ বছর খেলেছেন আপতে। ১৯৫২ সালে মুম্বাইয়ের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচেই সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন তিনি। যার সুবাদে একই বছর ডাক পেয়ে যান পাকিস্তান সফরের ভারতীয় জাতীয় দলে। সবমিলিয়ে প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে ৬৭টি ম্যাচ খেলেছেন আপতে। যেখানে ৬ সেঞ্চুরি ও ১৬ হাফসেঞ্চুরির সাহায্যে ৩৩৩৬ রান করেছেন তিনি।

 

তবে আপতের একটি অবদান হয়তো কখনোই ভুলতে পারবে না ভারতের ক্রিকেট। ১৯৮৯ সালে মুম্বাইয়ের ক্রিকেট ক্লাব অব ইন্ডিয়ার (সিসিআই) সভাপতি হয়েছিলেন আপতে। এর আগেই মাত্র ১৪ বছর বয়সী শচিন টেন্ডুলকারকে সিসিআইতে এনে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন তিনি।এত অল্প বয়সে টেন্ডুলকারকে ক্লাবে আনার স্মৃতি মনে করে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আপতে বলেছিলেন, ‘১৪, ১৬ বা ১৮ বছর বয়সী অনেক প্রতিভা দেখতে পাই আমরা চারপাশে। কিন্তু কেউই তাদের ভবিষ্যতের ব্যাপারে কিছু বলতে পারে না। তখন (শচিনকে আনার সময়) ড্রেসিংরুমে আমার বার্তা ছিলো যে, যদি এই ছেলে (শচিন) নিজের কাঁধ সোজা রেখে নিজের দায়িত্ব পালন করতে পারে তাহলে নিশ্চিতভাবে ভারতের জার্সি গায়ে পরবে। আর এরপর তো শতকের শতকই হাঁকিয়ে ফেলল সেই ছেলে।’

মতামত দিতে চান?

Please enter your comment!
Please enter your name here